1. qawmivoiceb@gmail.com : Mahbub :
৫ কারণে দুআ কবুল হয় না | কওমী ভয়েস

৫ কারণে দুআ কবুল হয় না

  • আপডেট সময়: মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১২৬ জন দেখাছেন

দুআ মুমিনের জীবনের একটি অংশ। প্রিয় নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শিখিয়েছেন এভাবে-

إذا سألت فاسأل الله وإذا استعنت فاستعن بالله.

যখন তুমি কিছু প্রার্থনা করবে তখন আল্লাহ্র কাছেই প্রার্থনা করবে; যখন সাহায্য চাইবে তখন আল্লাহ্র কাছেই সাহায্য চাইবে। -জামে তিরমিযী, হাদীস ২৫১৬

আমাদের সৃষ্টি কর্তা আল্লাহ রাব্বাল । মহান আল্লাহর কাছে তাঁর বান্দার প্রিয় একটি আমল হচ্ছে তাঁরই কাছে দুআ করা। যারা আল্লাহর কাছে চায় আল্লাহ তাদের ভালোবাসেন। আর যারা আল্লাহর কাছে চায় না তিনি তাদের অপছন্দ করেন। এ জন্য হাদীসে দুআকে ইবাদত বলা হয়েছে। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘তোমাদের প্রভু বলেন, তোমরা আমাকে ডাকো, আমি তোমাদের ডাকে সাড়া দেব।’ -সুরা : মুমিন, আয়াত : ৬০

উল্লেখ্য, আল্লাহর কাছে দুআ করলেই তা কবুল হবে। আবার অনেক মানুষ এমন রয়েছে যাদের দুআ কিছু কারণে আল্লাহ তাআলা কবুল করেন না। নিম্নে তাদের নিয়ে আলোচনা করা হলো—

১. দুআ করে নিরাশ হওয়া : দুআর পর আল্লাহর প্রতি অগাধ বিশ্বাস রেখো যে আল্লাহ আমার দুআ কবুল করবেন। নেতিবাচক কোনো চিন্তা না করা। অন্যথায় এ দুআ বিফল হয়ে যেতে পারে।

হযরত আবু হুরায়রা রাযি. থেকে বর্ণিত, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমাদের প্রত্যেক ব্যক্তির দুআ কবুল হয়ে থাকে। যদি সে তাড়াহুড়া না করে আর বলে যে, আমি দুআ করলাম, কিন্তু আমার দুআ তো কবুল হলো না।-বুখারি, হাদিস : ৬৩৪০

২. হারাম থেকে বেঁচে থাকা : দুআ কবুল হওয়ার অন্যতম শর্ত হচ্ছে হারাম খাদ্য, বস্ত্র, পানীয় ইত্যাদি পরিহার করা। হারাম উপার্জনে নিজেকে সম্পৃক্ত করে যতই দুআ করা হোক, তা আল্লাহর দরবারে গৃহীত হয় না।

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এক ব্যক্তির কথা উল্লেখ করেন, দীর্ঘ সফরের ক্লান্তিতে যার মাথার চুল বিক্ষিপ্ত, অবিন্যস্ত ও সারা শরীর ধুলামলিন। সে আসমানের দিকে হাত প্রশস্ত করে বলে, হে আমার প্রভু! হে আমার প্রতিপালক! অথচ তার খাদ্য ও পানীয় হারাম, তার পোশাক হারাম, তার জীবন-জীবিকাও হারাম। এমতাবস্থায় তার দুআ কিভাবে কবুল হতে পারে?-তিরমিজি, হাদীস : ৮৯৬৯

৩. আল্লাহপ্রদত্ত দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়া : হযরত হুজাইফা ইবনুল ইয়ামান রাযি. থেকে বর্ণিত, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, সেই সত্তার শপথ, যাঁর হাতে আমার প্রাণ! নিশ্চয়ই তোমরা সৎ কাজের জন্য আদেশ করবে এবং অন্যায় কাজের প্রতিরোধ করবে। তা না হলে আল্লাহ তাআলা শিগগির তোমাদের ওপর তাঁর শাস্তি অবতীর্ণ করবেন। তোমরা তখন তাঁর কাছে দুআ করলেও তিনি তোমাদের সেই দুআ গ্রহণ করবেন না।-তিরমিজি, হাদীস : ২১৬৯

৪. আত্মীয়তার বন্ধন ছিন্ন করা : আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করা একটি বড় ধরনের পাপ (অপরাধ)। এই পাপের শাস্তি দুনিয়া ও আখিরাত উভয় জায়গাতেই ভোগ করতে হবে বলে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে।

হাদীসে এসেছে, ‘কোনো মুসলিম দুআ করার সময় কোনো গুনাহের অথবা আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নের দুআ না করলে অবশ্যই আল্লাহ তাকে এ তিনটির কোনো একটি দান করেন। (১) হয়তো তাকে তার কাঙ্ক্ষিত সুপারিশ দুনিয়ায় দান করেন, (২) অথবা তা তার পরকালের জন্য জমা রাখেন এবং (৩) অথবা তার কোনো অকল্যাণ বা বিপদাপদ তার থেকে দূরে করে দেন। সাহাবিরা বলেন, তাহলে তো আমরা অনেক বেশি লাভ করব। তিনি বলেন, আল্লাহ এর চেয়েও বেশি দেন।-আত-তারগীব, হাদীস : ১৬৩৩

. অন্যমনস্ক হয়ে দুআ করা : দুআর সময় পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে দুআ করা। আল্লাহ অবচেতন মনের দুআ গ্রহণ করেন না।

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমরা কবুল হওয়ার পূর্ণ আস্থা নিয়ে আল্লাহর কাছে দুআ কোরো। জেনে রেখো, আল্লাহ অমনোযোগী ও অসাড় মনের দুআ কবুল করেন না।-তিরমিজি, হাদীস : ৩৪৭৯

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এজাতীয় আরও পড়ুন
©২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত| এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।
ডিজাইন: কওমী ভয়েস