1. qawmivoiceb@gmail.com : Mahbub :
রমযানের খবর যে আগে দেবে তার জাহান্নাম হারাম? | কওমী ভয়েস
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন

রমযানের খবর যে আগে দেবে তার জাহান্নাম হারাম?

Reporter Name
  • আপডেট সময়: মঙ্গলবার, ৯ মার্চ, ২০২১
  • ১২৫ জন দেখাছেন

বেশ কিছুদিন আগ থেকেই ফেসবুকের ইনবক্সে একটি বার্তা পেলাম। তাতে লেখা ‘প্রথম রমজান শুরু হবে ১৫/১৬ এপ্রিল, নবী পাক সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, রমযানের খবর যে লোক আগে অন্য কোনো ব্যক্তিকে দেবে তার জন্য জাহান্নামের আগুন হারাম হয়ে যাবে; অতএব আপনিও রমযানের খবর আগে ভাগে অন্যকে দিয়ে জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি লাভ করুন।’

এই বার্তার পর রমযানের সূচিসহ একটি বার্তা ইনবক্সে অাসে। তাতেও একই কথা লিখা। শুধু দুজন নয়, প্রায় ৫০ জনের উপরে অামাকে এই মেসেজ পাঠিয়েছে। ভেবেছিলাম কিছু বলবো না কাউকে, কিন্তু নবীর নামে মিথ্যা প্রচারের তীব্রতা অামাকে এ বিষয়ে কিছু বলতে বাধ্য করেছে।

মূল কথা- ‘সবার আগে রমযান মাসের খবর দিলে, তার জন্য জাহান্নামের আগুন হারাম হবে’। এ ব্যাপারে কোনো প্রমাণ নেই। বরং এটি সম্পূর্ণ বানোয়াট ও ভিত্তিহীন মনগড়া একটি কথা। যা ইহুদিরা তৈরি করে সাধারণ মুসলমানদের মাঝে ছেড়ে দিয়েছে যেন মুসলিমরা তাদের নবীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করতে পারে।

সুতরাং এ বার্তার কোনো ভিত্তি নেই। বরং এমন বার্তার আদান-প্রদান নিষিদ্ধ। কেননা, এমন বার্তা প্রচারের মাধ্যমে হযরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ওপর মিথ্যারোপ করা হচ্ছে। অার রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করার কত ভয়াবহ শাস্তি তা অনেক মুসলমানেরই অজানা।

বিশুদ্ধ হাদীস শরীফে এসেছে- قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: من كذب علي متعمدا فاليتبوؤ مقعده من النار

অর্থ: রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি অামার বিরুদ্ধে ইচ্ছাকৃত মিথ্যাচার করলো, সে যেন পরকালে জাহান্নামকেই তার ঠিকানা বানিয়ে নিলো।-অাবু দাউদ শরীফ, হাদীস নং-৩৬৫১, ইবনে মাজাহ শরীফ, হাদীস নং-৩০, তিরমিযী শরীফ, হাদীস নং-২৬৬১, নাসায়ী শরীফ, হাদীস নং-৫৯১৫, বুখারী শরীফ, হাদীস নং-১০৬, মুসলিম শরীফ, হাদীস নং-৪

তবে রমযান মাসের আগমন উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানানো দোষণীয় কোনো বিষয় নয়। কেননা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাহাবিদের রমযানের আগমন উপলক্ষে সুসংবাদ দিতেন এবং তাদের উত্তম আমলসমূহের জন্য প্রস্তুতি নিতে উৎসাহিত করতেন।

এ বিষয়ে একটি দীর্ঘ হাদীস বর্ণিত হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, হযরত সালমান ফারসি রাযি. হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, শাবান মাসের শেষ দিনে হযরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দিলেন।

ওই ভাষণে তিনি বলেন, হে লোক সকল! একটি মহিমান্বিত মাস তোমাদের ছায়া হয়ে ঘিরে ধরেছে। এ মাস একটি বরকতময় মাস। এটি এমন এক মাস, যার একটি রাত হাজার মাসের চেয়ে উত্তম।

আল্লাহ তাআলা এ মাসের সিয়ামকে ফরজ করেছেন আর নফল করে দিয়েছেন এ মাসে রাতের কিয়ামকে।

যে ব্যক্তি এ মাসে একটি নফল কাজ করবে, সে যেন অন্য মাসের একটি ফরজ আদায় করল। আর যে ব্যক্তি এ মাসে একটি ফরজ আদায় করল, সে যেন অন্য মাসের সত্তরটি ফরজ সম্পাদন করল। এ মাস সবরের (ধৈর্যের) মাস; সবরের সওয়াব জান্নাত। এ মাস সহমর্মিতার। এ এমন এক মাস যাতে মুমিনের রিজিক বৃদ্ধি করা হয়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এজাতীয় আরও পড়ুন
©২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত| এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।
ডিজাইন কওমী ভয়েস