1. qawmivoiceb@gmail.com : Mahbub :
ফেক আইল্যাস বা কৃত্রিম পাপড়ি কি হারাম? | কওমী ভয়েস
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০৪:০৫ পূর্বাহ্ন

ফেক আইল্যাস বা কৃত্রিম পাপড়ি কি হারাম?

মুফতী মাহবুব
  • আপডেট সময়: শুক্রবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২১২ জন দেখাছেন

তরুণী নারীদের চোখের সাজে কৃত্রিম পাপড়ির [আইল্যাশ] ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে। চোখে আকর্ষণীয় লুক দিতে কৃত্রিম পাপড়ি বেছে নেয় তারা। এই চোখের সাজে কৃত্রিম পাপড়ির ব্যবহার বেশ প্রচলিত। উন্নত মান ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ধরে রাখবে এমন নকল পাপড়ি বেশ ব্যয়বহুলও বটে। তবে দেখার বিষয় হলো; মেয়েরা সাজসজ্জার উদ্দেশ্যে যে ফেক আইল্যাস (নকল চোখের পাপড়ি) ব্যবহার করে থাকে, সেটি ব্যবহার কি ইসলামে জায়েজ?

ড. খালিদ আল মুসলিহ বলেন, ফেক আইল্যাস বা কৃত্রিম পাপড়ি লাগানো জায়েয নেই।

أخاف أن تكون من الوصل المحرم الذي لعن الله فاعله، كما جاء الخبر عن رسول الله ﷺ: (لعن الله الواصلة والمستوصلة) عن جماعة من الصحابة رضي الله عنهم، … ومما لا يخفي أن في هذا العمل كذبا، وقد يكون معه تدليس أو غش، فالذي أنصح به الأخوات أن يجتنبن مثل هذه الوسائل التجميلية، والاكتفاء بالمباح،

আমি আশঙ্কা করছি, এটি নিষিদ্ধ পরচুলার অন্তর্ভুক্ত, যার কর্তাকে আল্লাহ তাআলা লানত করেছেন। যেমনটি হাদীসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও সাহাবায়ে কেরামের অনেকেই বলেছেন যে, ‘আল্লাহ তাআলা পরচুলা ব্যবহারকারিনী ও যে ব্যবহার করায় উভয়কে লানত করেছেন।’ আর এটা তো স্পষ্ট যে, কাজটি মিথ্যার অন্তর্ভুক্ত। এটা প্রতারণাও। এজন্য মুসলিম বোনদেরকে আমি উপদেশ দিচ্ছি, তারা যেন এধরণের মেকআপ থেকে বেঁচে থাকে এবং বৈধ মেকআপ নিয়ে সন্তুষ্ট থাকে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এজাতীয় আরও পড়ুন
©২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত| এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।
ডিজাইন কওমী ভয়েস