1. qawmivoiceb@gmail.com : Mahbub :
  2. muftimahbub454@gmail.com : কওমী ভয়েস : কওমী ভয়েস
ফটোগ্রাফি পেশা গ্রহণের হুকুম কী? | কওমী ভয়েস
বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৩:৫২ অপরাহ্ন

ফটোগ্রাফি পেশা গ্রহণের হুকুম কী?

কওমী ভয়েস
  • আপডেট সময়: শুক্রবার, ৪ জুন, ২০২১
  • ৮ জন দেখাছেন

জিজ্ঞাসাঃ যারা ফটো তোলে এবং ছাপা করে তাদের টাকা হালাল নাকি হারাম। বর্তমানে প্রয়োজনের তাগিদে সবাইকে ফটো তোলতে হয়। তাই এই ব্যব্সা বা কাজ কে অনেকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। কিন্তু শুধু পাসপোর্ট সাইজের ফটো তোলে সংসার চালানো কঠিন। তাই বিবাহ অনুষ্ঠানে কনের ফটো তোলে উপার্জন করা কি হারাম। বিয়ের ফটো তো অনেকে স্মৃতির জন্য তোলে থাকে । যারা সংবাদ কর্মী তারাও ফটো তোলে এবং ছাপা করে। তারাও কি হারামের মাঝে আছে।

জাকারিয়া খান। সিলেট।

সমাধানঃ জীবিকা নির্বাহের অনেক পথই খোলা আছে। তাই হারাম পথ অবলম্বন করে উপার্জন করা থেকে বিরত থাকা আবশ্যক।

আমরা বেঁচে আছি আখেরাতের পূঁজি কামাইয়ের জন্য। এটাই একজন প্রকৃত মুসলিমের মানসিকতা। একজন প্রকৃত মুসলিম। না খেয়ে মরে যাবে, কিন্তু নিজের উদরে একটি হারাম পয়সা প্রবেশ করতে দিবে না। এটাই সত্যিকার মুমিনের আলামত।

প্রাণীর ফটো তোলা বা আঁকা একই হুকুম। এক্ষেত্রে হাদীসে পরিস্কার নিষেধাজ্ঞা এসেছে। তা’ই এ পেশা থেকে নিজেকে বিরত রাখা প্রতিটি মুমিনের জন্য আবশ্যক। আর বিয়ে অনুষ্ঠানে কনের ছবি তোলার মাধ্যমে ছবি তোলার হারাম কাজের সাথে সাথে পর্দা লঙ্ঘণের গোনাহও যুক্ত হচ্ছে।

তাই এ পেশা থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়া শরয়ী দৃষ্টিকোণ থেকে অত্যাবশ্যক।

ছবি তোলা ও ছাপানো সবই নাজায়েজ। তা’ই যারা এসব কর্মে লিপ্ত তাদের উচিত অন্য কোন পেশা খুঁজে নেয়া।

عَنْ سَعِيدِ بْنِ أَبِى الْحَسَنِ قَالَ جَاءَ رَجُلٌ إِلَى ابْنِ عَبَّاسٍ فَقَالَ إِنِّى رَجُلٌ أُصَوِّرُ هَذِهِ الصُّوَرَ فَأَفْتِنِى فِيهَا. فَقَالَ لَهُ ادْنُ مِنِّى. فَدَنَا مِنْهُ ثُمَّ قَالَ ادْنُ مِنِّى. فَدَنَا حَتَّى وَضَعَ يَدَهُ عَلَى رَأْسِهِ قَالَ أُنَبِّئُكَ بِمَا سَمِعْتُ مِنْ رَسُولِ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- سَمِعْتُ رَسُولَ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- يَقُولُ « كُلُّ مُصَوِّرٍ فِى النَّارِ يَجْعَلُ لَهُ بِكُلِّ صُورَةٍ صَوَّرَهَا نَفْسًا فَتُعَذِّبُهُ فِى جَهَنَّمَ ». وَقَالَ إِنْ كُنْتَ لاَ بُدَّ فَاعِلاً فَاصْنَعِ الشَّجَرَ وَمَا لاَ نَفْسَ لَهُ.

হযরত সাঈদ বিন আবুল হাসান বলেন, এক ব্যক্তি হযরত ইবনে আব্বাস রাঃ এর কাছে এসে বলল, আমি চিত্রকর। এবং চিত্র অংকন করি। এতএব এ সম্পর্কে আমাকে শরীয়তের বিধান বলে দিন। ইবনে আব্বাস রাঃ বলেন, আমার কাছে আস। সে ব্যক্তি তাঁর কাছে গেল। তিনি পুনরায় বললেন, আমার কাছে আস। সে ব্যক্তি তার এত কাছে গেল যে, ইবনে আব্বাস রা তাঁর হাত ঐ ব্যক্তির মাথার উপর রাখলেন, এবং বললেন, আমি তোমাকে এ সম্পর্কে এমন একটি হাদীস শুনাচ্ছি, যা আমি রাসূল সাঃ এর কাছে শুনেছি। আমি রাসূল সাঃ কে বলতে শুনেছি যে, “সকল চিত্রকরই দোযখে যাবে। আর প্রত্যেক চিত্রের পরিবর্তে জীবিত এক ব্যক্তিকে বানানো হবে, যা দোযখে তাকে শাস্তি দেবে”। ইবনে আব্বাস রাঃ বলেন, যদি তোমাকে এরূপ করতেই হয়, তাহলে গাছ-পালা বা এমন বস্তুর ছবি তৈরী কর যা প্রাণী নয়। {সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৫৬৬২}

عبد الله بن عمر رضي الله عنهما أخبره : أن رسول الله صلى الله عليه و سلم قال ( إن الذين يصنعون هذه الصور يعذبون يوم القيامة يقال لهم أحيوا ما خلقتم

হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন-যে লোকেরা ছবি আঁকে, কিয়ামতের দিন তাদের শাস্তি দেয়া হবে। আর তাদের বলা হবে যে, যা তোমরা বানিয়েছো তাতে প্রাণ দাও। {তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-৬৯৪১, সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৬০৭, ৭১১৯, ৫৬১২, ৫৬১৬, ৭১১৮, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৫৬৫৭, সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং-৫৮৪৫, }

عبد الله قال : سمعت النبي صلى الله عليه و سلم يقول ( إن أشد الناس عذابا عند الله يوم القيامة المصورون

হযরত আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন যে, কিয়ামতের দিন বেশি কঠিন শাস্তি হবে ছবি অংকনকারীদের। {তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-৬৪৩২, সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৬০৬, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৫৬৫৯}

عَنْ أَبِي طَلْحَةَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُمْ قَالَ قَالَ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لَا تَدْخُلُ الْمَلَائِكَةُ بَيْتًا فِيهِ كَلْبٌ وَلَا تَصَاوِيرُ

হযরত আবু তালহা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ কে আমি বলতে শুনেছি যে, ঐ ঘরে ফেরেস্তা প্রবেশ করে না, যেই ঘরে কুকুর বা জীব-জন্তুর ছবি থাকে। {তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-৫২৭২, সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৪১৫৯, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-৩৬৪৯, সুনানে বায়হাকী, হাদীস নং-১০৮৪, সুনানে তিরমিযী, হাদীস নং-২৮০৪, সুনানে দারেমী, হাদীস নং-২৬৬৩, সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৩০৫৩, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৫৬৩৩, সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং-৫৮৫৫}

عن سعيد بن أبي الحسن قال : كنت عند ابن عباس رضي الله عنهما إذ أتاه رجل فقال يا أبا عباس إني إنسان إنما معيشتي من صنعة يدي وإني أصنع هذه التصاوير . فقال ابن عباس لا أحدثك إلا ما سمعت رسول الله صلى الله عليه و سلم يقول سمعته يقول ( من صور صورة فإن الله معذبه حتى ينفخ فيها الروح وليس بنافخ فيها أبدا ) . فربا الرجل ربوة شديدة واصفر وجهه فقال ويحك إن أبيت إلا أن تصنع فعليك بهذا الشجر كل شيء ليس فيه روح

হযরত সাঈদ বিন আবিল হাসান রহঃ বলেন, আমি একদা হযরত আব্দুল্লাহ বিন আব্বাস রাঃ এর কাছে ছিলাম। তখন তাঁর কাছে এক ব্যক্তি এল। লোকটি এসে বলল-‘হে ইবনে আব্বাস! আমার উপার্জনের নির্ভরতা আমার হাতের সৃষ্টির উপর, আমি ছবি আঁকি’। হযরত আব্দুল্লাহ বিন আব্বাস রাঃ বললেন-‘আমি তোমার কাছে সেই কথা বর্ণনা করছি, যা আমি রাসূল সাঃ কে বলতে শুনেছি, আমি রাসূল সাঃ কে এটা বলতে শুনেছি যে, যেই ব্যক্তি ছবি বানায়, তাকে আল্লাহ তায়ালা শাস্তি দিতে থাকবেন যতক্ষণ না সে উক্ত ছবিতে প্রাণ দিতে পারে, আর সেই ব্যক্তি কোনদিন তাতে প্রাণ দিতে পারবে না’। একথা শুনে লোকটা দীর্ঘশ্বাস ফেলল। আর তার চেহারা পাংশু হয়ে গেল। তখন হযরত আব্দুল্লাহ বিন আব্বাস রাঃ বললেন-“আরে ভাই! যদি তুমি বানাতেই চাও, তাহলে গাছের ছবি আঁকো। আর প্রত্যেক ঐ বস্তুর ছবি আঁকো, যাতে প্রাণ নেই। {তাহাবী শরীফ, হাদীস নং-৬৪৩৪, সহীহ বুখারী, হাদীস নং-২১১২, মুসনাদে আবি ইয়ালা, হাদীস নং-২৫৭৭, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-৩৩৯৪, মু’জামে ইবনে আসাকীর, হাদীস নং-১১, সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং-৫৮৪৮}

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এজাতীয় আরও পড়ুন
©২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত| এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।
Theme Customized BY QawmiVoice