1. qawmivoiceb@gmail.com : Mahbub :
পীর পূজা শেষ হবে কবে? | কওমী ভয়েস
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১২:৪২ পূর্বাহ্ন

পীর পূজা শেষ হবে কবে?

মুফতী মাহবুব
  • আপডেট সময়: সোমবার, ১১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৬৫ জন দেখাছেন

পীর পূজা, বুযুর্গ ওলী বা কোন সম্মানিত ব্যক্তিকে পূজা করা, পীরের নামে পশু জবাই করা, পীরের আদেশকে আল্লাহর আদেশের সমতূল্য মনে করা। অন্য কাউকে এ সমস্ত কর্মকাণ্ডে উৎসাহিত করা ইত্যাদি হারাম ও গুনাহে জারিয়াহ।

ইসলামের দৃষ্টিতে সিজদা কৃতজ্ঞতাসূচক হোক কিংবা সম্মানসূচক হোক অথবা ইবাদতের উদ্দেশ্যে হোক আল্লাহ ছাড়া অন্য কাউকে সিজদা জায়েজ নেই।

মহান আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তখন ফেরেশতারা সবাই একসঙ্গে আদম আ.-এর সামনে] সিজদা করে।’ -সুরা : হিজর, আয়াত : ৩০

উল্লেখিত আয়াতে বলা হয়েছে, আল্লাহর নির্দেশ পেয়ে ফেরেশতারা বিনা বাক্যে একযোগে হজরত আদম আ.-এর সামনে সিজদাবনত হন। আল্লামা ইবনে কাসির রহ. এ আয়াতের ব্যাখ্যায় লিখেছেন, ‘ফেরেশতাদের এই সিজদাবনত হওয়া আদম আ.-এর জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে বড় ধরনের সম্মাননা। বংশপরম্পরায় আদম সন্তানরাও এ সম্মানের ভাগীদার।’ -দ্রষ্টব্য : ইবনে কাসির, সুরা বাকারার ৩৪ নম্বর আয়াতের তাফসির

এরপর ইবনে কাসির রহ. প্রখ্যাত তাবেয়ি কাতাদা রহ.-কে উদ্ধৃত করে লিখেছেন, ‘এই সিজদা ছিল আল্লাহর আনুগত্য প্রদর্শনের জন্য, যদিও সেটি হয়েছে আদম আ.-এর সামনে।’ তবে কোনো কোনো তাফসিরবিদের অভিমত হলো, এটি ছিল অভিবাদন ও সম্মানসূচক সিজদা। অতীতে এ ধরনের সিজদা বৈধ ছিল। কিন্তু ইসলামী শরিয়তে তা রহিত করা হয়েছে।-ইবনে কাসির, প্রাগুক্ত

আমাদের এই আলোচনা থেকে জানা যায়, ইসলামী শরিয়ত মতে, আল্লাহ ছাড়া অন্য কাউকে ইবাদত মনে করে, সম্মান জানিয়ে বা অভিবাদন হিসেবে সিজদা করা বৈধ নয়।

আল্লাহ ভিন্ন অন্য কারও জন্য সিজদা অবৈধ হওয়ার স্বপক্ষে আবু দাউদ ও মুসনাদে আহমাদে একটি হাদীস বর্ণিত হয়েছে। এ প্রসঙ্গে একাধিক হাদিস বর্ণিত হয়েছে। হযরত কাইস ইবনে সাদ রাযি. বলেন, ‘আমি হিরা নামক স্থানে গিয়েছিলাম। দেখলাম, সেখানকার অধিবাসীরা তাদের মোড়ল (রাষ্ট্রপ্রধানদের) সিজদা করে। আমি (মনে মনে) বললাম, নিশ্চয় আল্লাহর রাসুল সা. সিজদা পাওয়ার অধিক উপযুক্ত। তারপর আমি রাসুলুল্লাহ সা.-এর কাছে এসে বললাম, হিরা নামক স্থানে আমি দেখেছি, সেখানকার লোকেরা রাষ্ট্রপ্রধানদের সিজদা করে। আপনি তো আল্লাহর রাসুল। আপনি তো এ বিষয়ে অধিক হকদার। এ কথা শুনে রাসুলুল্লাহ সা. বলেছেন, তুমি যদি আমার কবরের পাশ দিয়ে যাও, তাহলে কি তাকে সিজদা করবে? আমি বললাম, না। অতঃপর মহানবী সা. বলেছেন, কখনো এমনটি করবে না। আমি যদি কাউকে কারো জন্য সিজদা করার আদেশ দিতাম, তাহলে স্ত্রীদের বলতাম তাদের স্বামীদের সিজদা করতে। কেননা আল্লাহ তাআলা স্ত্রীদের কাছে স্বামীদের বিশেষ হক দিয়েছেন।’ -মুসতাদরাক হাকেম, হাদীস : ২৮১৭, আবু দাউদ, হাদীস : ২১৪০, দারেমি, হাদীস : ১৪৬৩

সুনানে দারেমিতে এসেছে, একবার এক গ্রাম্য লোক মহানবী সা.-এর দরবারে হাজির হয়ে বলেছেন, হে আল্লাহর রাসুল, আমাকে অনুমতি দিন, আমি আপনাকে সিজদা করতে চাই। মহানবী (সা.) বলেছেন, (আল্লাহ ছাড়া কারো জন্য সিজদা করা বৈধ নয়) আমি যদি কাউকে কারো উদ্দেশে সিজদা করার নির্দেশ দিতাম, তাহলে স্ত্রীদের বলতাম তারা যেন তাদের স্বামীদের সিজদা করে।’ -সুনানে দারেমি, হাদীস : ১৪৬৪

পীর-বুযুর্গ বা কোন ওলীর নামে পশু জবাই করা, জবাইকৃত পশুর গোস্ত খাওয়া-দাওয়া করা, বন্টন করা সবই হারাম। যেমন কুরআনুল কারীমে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তিনি (আল্লাহ) তোমাদের উপর হারাম করেছেন, মৃত জীব, রক্ত, শুকরের গোস্ত এবং যেসব জীব-জন্তু যা আল্লাহ ব্যতীত অপর কারো নামে উৎসর্গ (জবাই) করা হয়েছে।’-সূরা বাকারা ৭২

সর্বোপরি হাদীসগুলোর মূলকথা হলো, মহান আল্লাহ ছাড়া অন্য কাউকে, অন্য কোনো কিছুকে সিজদা করা যাবে না। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘…তোমরা সূর্যকে সিজদা কোরো না, চন্দ্রকেও নয়। সিজদা করো আল্লাহকে, যিনি এগুলো সৃষ্টি করেছেন..।’ -সুরা হা-মিম সিজদা, আয়াত : ৩৭

আল্লাহ তাআলা আমাদের সকলকে পীর পূজা, মাজার পূজাসহ সর্বপ্রকার শিরক ও কুফর থেকে হেফাযত করুন। আমীন সুম্মা আমীন।

লেখক, মুহাদ্দিস, মাদরাসায়ে হালিমাতুস সাদিয়া রাযি. ঢাকা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এজাতীয় আরও পড়ুন
©২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত| এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।
ডিজাইন কওমী ভয়েস