1. qawmivoiceb@gmail.com : Mahbub :
নারী-পুরুষের চুলে কলপ ব্যবহারের বিধান | কওমী ভয়েস
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন

নারী-পুরুষের চুলে কলপ ব্যবহারের বিধান

ধর্মীয় ডেস্ক
  • আপডেট সময়: মঙ্গলবার, ৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১৭১ জন দেখাছেন

বেঁচে থাকলে প্রত্যেকটি মানুষ বৃদ্ধ হবেন এটাই আল্লাহর বিধান। বার্ধক্য এলে অনেকের চুল-দাড়ি ধবধবে সাদা হয়ে যায়। সাদা দাড়িওয়ালা অনেকে দাড়ি ও চুলে খেজাব বা মেহেদি ব্যবহার করেন। আবার বার্ধক্যজনিত কারণ ছাড়াও অপরিণত বয়সে অনেক যুবকের মাথার চুল পেকে যায়। চুল কালো করতে তারাও বিভিন্ন পদ্ধতির আশ্রয় নেন। চুল-দাড়িতে কলপ, খেজাব বা মেহেদি যাই হোক, তা ব্যবহারের আগে মুসলমানদের উচিত ইসলামের দৃষ্টিতে তা কতটা বৈধ তা জেনে নেওয়া।

প্রথমত লাল ও হরিদ্রা বর্ণের খেজাব লাগানো সর্বসম্মত মতানুসারে জায়েজ। জিহাদের ময়দানে কালো খেজাব ব্যবহার করা জায়েজ। এটিও সর্বসম্মত মত। কিন্তু অন্য সময় কালো খেজাব ব্যবহার করা যাবে কি না? এ বিষয়ে ফুক্বাহায়ে কেরামের মাঝে মতভেদ আছে।

উল্লেখ্য, আমভাবে ফুক্বাহাদের মতে তা মাকরূহ। কিন্তু ইমাম আবু ইউসুফ রহ.-এর মতে স্ত্রীকে খুশি করতে মাকরূহ হওয়া ছাড়াই জায়েজ। হযরত থানবী রহঃ তার “ইমদাদুল ফাতওয়া” এর ৪/২১৩ এ প্রথমে যে ফাতওয়াটি লিখেছেন সেটির সারকথা এটাই। এরপর তিনি তার কিতাবে কোথাও মাকরূহে তাহরীমী আবার কোথাও হারামও বলেছেন।

বিশেষভাবে আরও উল্লেখ্য যে, মুফতী আযীযুর রহমান রহ. ও ফাতাওয়া দারুল উলুম দেওবন্দের মাঝে এ বিষয়ে চারটি  জবাব দিয়েছেন। ফাতাওয়া দারুল উলুম দেওবন্দের ১৬/২৪০-২৪১ এ যে চারটি জবাব দিয়েছেন, এর প্রথম তিনটির জবাবে বলেছেন, “কালো খেযাব অধিকাংশ মাশায়েখদের নিকট মাকরূহ এবং কতিপয় মাশায়েখ মাকরূহ না হবার প্রবক্তা। মোটকথা হল,এ থেকে বিরত থাকাই উত্তম। মুফতী আযীযুর রহমান চতুর্থ জবাবে কালো খেযাব ব্যবহারকে মাকরূহে তাহরীমী প্রমাণ করেছেন।

অন্য দিকে মুফতী কেফায়াতুল্লাহ রহঃ “কেফায়াতুল মুফতী” এর কদীম সংস্করণ এর ৯/১৭১-১৭২ এবং জাদীদ সংস্করণ এর ১২/৩৪২ এ কালো খেযাব লাগানো শুধু মাকরূহ বলেছেন। তাহরীমী কোথাও লিখেননি।

আবার মুফতী রশীদ আহমাদ গঙ্গুহী রহঃ ফাতাওয়া রশীদিয়ার ৩৪৮ পৃষ্ঠায় তা ব্যবহার করতে নিষেধ করেছেন। জাদীদ সংস্করণের ৫৮০ পৃষ্ঠায় এতটুকু এসেছে যে, কালো খেযাব ছাড়া বাকি সকল খেযাব ব্যবহার  জায়েজ। গঙ্গুহী রহঃ ও কোথাও কালো খেযাবকে মাকরূহও বলেননি। শুধু নিষেধ করেছেন।

এখন আমরা হাদীসের আলোকে চিন্তা ফিকির করে দেখি জিহাদ ও বিবিকে খুশি করতে খেযাব ব্যবহার করা ছাড়াও এমনিতে সাজগুজের জন্য কালো খেযাব ব্যবহার করা যাবে কি না? এ বিষয়ক হাদীসগুলো সামনে রাখলে আমাদের সামনে দুই ধরণের হাদীস আসে। যথা-

এক. কিছু বর্ণনা এমন যদ্বারা আমভাবে তা জায়েজ হবার প্রমাণ বহন করে।
দুই. কিছু বর্ণনা দ্বারা নাজায়েজ প্রমাণিত হয়।

সে কারণেই উভয় প্রকারের বর্ণনা সামনে এনে আমাদের চিন্তা করতে হবে “কালো খেযাব ব্যবহার” করার বিধান কী হবে?

প্রথম প্রকারের বর্ণনা ইমাম তাবারানী রহ. “আলমুজামুল কাবীর” এ হযরত সাদ বিন আবী ওয়াক্কাস রা. এবং হযরত জারীর বিন আব্দুল্লাহ বাজালী রা. এর আমল নকল করেছেন। এ উভয় শায়েখ কালো খেযাব ব্যবহার করতেন।

মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা এর সহীহ এবং আলী সনদে নকল করা হয়েছে যে, হযরত উকবা বিন আমের রা. কালো খেযাব ব্যবহার করতেন। সেই সাথে তা ব্যবহারে উৎসাহও প্রদান করতেন।

এছাড়া হযরত হাসান রা. এবং হযরত হুসাইন রা. এর আমলও সহীহ সনদে বর্ণিত হয়েছে যে, তারাও কালো খেযাব ব্যবহার করতেন।

হযরত ইমাম মুহাম্মদ বিন হানফিয়্যা রহ. এর কাছে কালো খেযাব ব্যবহার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমার দৃষ্টিতে এতে কোন সমস্যা নেই।

একই ভাবে নারীদের চুলে কলপ ব্যবহার করার বিধান পুরুষদের চুলে কলপ ব্যবহার করার মতোই।

চুল-দাড়িতে নারী-পুরুষ উভয়ে মেহেদি ব্যবহার করতে পারবেন।  পুরুষের জন্য শরীরের অন্য কোথাও রঙ লাগানোর অনুমতি নেই, তাই তারা শুধু চুল-দাড়ি বাদে শরীরের আর কোথাও মেহেদি লাগাতে পারবেন না।  কিন্তু নারীরা হাত-পাসহ শরীরের অন্যান্য অঙ্গেও মেহেদি লাগাতে পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এজাতীয় আরও পড়ুন
©২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত| এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।
ডিজাইন কওমী ভয়েস