আধুনিক মাসায়েল

দুই স্ত্রীর সাথে একসঙ্গে ঘুমানো এবং সহবাস করা

  Mahbub ৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ , ৮:৪৯ পূর্বাহ্ণ প্রিন্ট সংস্করণ

জিজ্ঞাসাঃ

যার দু’জন স্ত্রী, ঐ স্বামীর যদি কারণবশত রুমের সংকট হওয়ায় দু’জনই স্বামীর সাথে ঘুমায় তাহলে গুনাহ হবে কি? এমতাবস্থায় যদি কোন স্ত্রীর সহবাসের খাহেশ জেগে ওঠে সে ক্ষেত্রে কি সহবাস করতে চাইলে কোন গুনাহ হবে? কোন নিয়মে সহবাস করবে?–Mohammad Ali

জবাব: এক রুমে দুই স্ত্রীর সাথে একসাথে থাকা তিনটি শর্ত সাপেক্ষে জায়েয–

১. তাদের উভয়ের সম্মতি থাকতে হবে। ইবনু কুদামা রহ. বলেন,

وَلَيْسَ لِلرَّجُلِ أَنْ يَجْمَعَ بَيْن امْرَأَتَيْهِ فِي مَسْكَنٍ وَاحِدٍ بِغَيْرِ رِضَاهُمَا؛ لأَنَّ عَلَيْهِمَا ضَرَرًا ؛ لِمَا بَيْنَهُمَا مِنْ الْعَدَاوَةِ وَالْغَيْرَةِ 

পুরুষের জন্য দুই স্ত্রীকে নিয়ে একসঙ্গে থাকা তাদের সম্মতি ব্যতীত জায়েয নেই। কেননা, উভয়ের মাঝে বৈরিতা ও ঈর্ষা থাকে বিধায় উভয়ের ক্ষতি হতে পারে। (আলমুগনী ৭/৩০০)

২. এক স্ত্রীর সামনে অন্য স্ত্রীর সতর খোলা থাকতে পারবে না। কেননা, একজন নারী অপর নারীর সতর দেখা হারাম।  রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন,

لَا يَنْظُرُ الرَّجُلُ إِلَى عَوْرَةِ الرَّجُلِ وَلَا تَنْظُرُ الْمَرْأَةُ إِلَى عَوْرَةِ الْمَرْأَةِ

পুরুষ পুরুষের এবং নারী নারীর সতর দেখবে না। (মুসলিম ৩৩৮)

আর নারীর সামনে নারীর সতর হচ্ছে, নাভী থেকে হাঁটু পর্যন্ত।  (হেদায়া ২/৪৪৫,হিন্দিয়া ৫/৩২৭, বাহারুর রায়েক ৯/৩৫৪)

৩. এক স্ত্রীর সামনে আরেক স্ত্রীর সঙ্গে সহবাস করতে পারবে না। হাসান বসরী রহ. বলেন,

كانوا – أي : الصحابة أو كبار التابعين – يكرهون ” الوجس ” ، وهو أن يطأ إحداهما والأخرى تسمع الصوت – ولفظ الكراهة عند المتقدمين معناه التحريم

সাহাবায়ে কেরাম ও শীর্ষ তাবিঈগণ ‘ওয়াজাস’-কে ঘৃণা করতেন। আর ওয়াজাস মানে এক স্ত্রীর সঙ্গে সহবাস করার সময় অপর স্ত্রী আওয়াজ শুনতে পাওয়া। আর ঘৃণা করা দ্বারা পূর্ববর্তীগণ উদেশ্য নিতেন, হারাম মনে করা। (মুসান্নাফ ইবনু আবী শাইবাহ ৪/৩৮৮)

ইবনু কুদামা রহ. বলেন,

إن رضيتا بأن يجامع واحدة بحيث تراه الأخرى لم يجز ، لأن فيه دناءة وسخفا وسقوط مروءة فلم يبح برضاهما

যদি স্বামী উভয় স্ত্রীর সম্মতিতে একজনের সামনে আরেকজনের সঙ্গে সহবাস করে তাহলে এটা নাজায়েয। কেননা, এতে রয়েছে নিকৃষ্টতা, নির্বুদ্ধিতা ও নোংরামি। সুতরাং এটি তাদের সম্মতির কারণে জায়েয হয়ে যাবে না। (আলমুগনী ৮/১৩৭)

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
শায়েখ উমায়ের কোব্বাদী