সম্পাদকীয়

টিকটক আসক্তে কওমী সন্তারা

  Mahbub ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২ , ৫:৫৩ পূর্বাহ্ণ প্রিন্ট সংস্করণ

মোবাইল-ফোন  বর্তমান সময়ে মানুষের জীবনের অন্যতম অনুষজ্ঞ হয়ে উঠলেও শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় মনোযোগ নষ্ট করে বলে মনে করেন গবেষকরা।

মোবাইল ফেসবুকসহ ইন্টারনেট ভিক্তিক বিভিন্ন মাধ্যমগুলোতে কওমী মাদরাসার ছাত্র-ছাত্রীরা জড়িয়ে পড়ায় পড়াশোনার সাথে তাদের ব্যাপক দূরত্ব তৈরি হচ্ছে।

মোবাইল ইলমে দীন অর্জনে অন্যতম প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে। ‘থানভী রহ. ইলমের পরিচয় দিতে গিয়ে বলেছেন, ইলম এমন জিনিস যা গুনাহের মাধ্যমে দূর হয়ে যায়’। আর মোবাইল- ইন্টারনেট প্রায় পুরোটাই গুনাহের মাধ্যমগুলোতে ভরপুর তাই ইলমে দীনের অর্জন ও পড়াশোনায় একাগ্রতার জন্য শিক্ষার্থীদের সর্বাত্মকভাবে  মোবাইল থেকে দূরে থাকা একান্ত প্রয়োজনীয়।

বন্ধ হচ্ছেনা অভিশপ্ত টিকটক, নতুন প্রজন্মকে ইন্টারনেটের আপত্তিকর আসক্তি থেকে বের করে আনতে ইতিমধ্যে অশ্লীল কনটেন্ট, জুয়া বা বিপথগামী সাইট বন্ধ করে দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। এর ধারাবাহিকতায় এবার দেশীয় সংস্কৃতি রক্ষায় টিকটক বন্ধের দাবি সকল শ্রেণী পেশার লোকের।

অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানাতে হচ্ছে যে, বর্তমান মাদরাসার কিছু নাম ধারী ছাত্র-ছাত্রীরা টিকটক আসক্তিতে পড়ে দীন ও দুনিয়া দুটোই হারানোর পথে। যারা জাতির কান্ডারী তারাই যদি বিপদগামী হয়ে পড়ে! তা হলে এ সমাজের সাধারণ বিপদগামী মানুষকে আলোর পথ কে দেখাবে?

কয়েকদিন থেকেই আমার পরিচিত কয়েকটি মাদরাসায় পড়ুয়া মেয়ের টিকটক চোখে পড়ে। আমার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে! এরা তো কথিত নর্তুকীকেও হার মানিয়েছে।

পরিশেষে, মাদরাসা কর্তৃপক্ষ ও অভিভাবকদের বলছি, নিজের সন্তানের প্রতি যত্নশীল হোন। নয়তো জাহান্নামে যাওয়ার জন্য এ বিপদগামী সন্তানই যথেষ্ট। আল্লাহ আমলে আনার তাওফিক দান করুন। আমীন।