সম্পাদকীয়

আর বিলম্ব না করে মাদরাসাগুলোকে চলতে দিন

  Mahbub ২৫ আগস্ট ২০২১ , ১২:০১ অপরাহ্ণ প্রিন্ট সংস্করণ

মাওলানা আবদুল মালেক দা. বা.


বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি চলছে প্রায় দুই বছর থেকে। বাংলাদেশে ২০২০-এর মার্চ মাস থেকে এ মহামারিকে উপলক্ষ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে আছে। বিভিন্ন পরীক্ষা হয়নি। কেন্দ্রীয় পরীক্ষাগুলোও হয়নি। পরীক্ষা ছাড়াই শিক্ষার্থীদের ‘অটো পাশ’ দিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে গত শিক্ষাবর্ষে সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না খুললেও মাদরাসাগুলো খোলা রাখার ব্যাপারে সরকার ইতিবাচক সাড়া দিয়েছিল এবং পুরো দেশে অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও কওমী মাদরাসায় শিক্ষাবর্ষের শেষ মাস শাবানের আগ পর্যন্ত সুচারুরূপে লেখাপড়া হয়েছে। ব্যবসা, খেলাধুলা, বিনোদন, পর্যটন, কল-কারখানা, অফিস-আদালত (মাঝে অল্প দিনের বিরতি ছাড়া) সবকিছু প্রায় স্বাভাবিকভাবেই চলেছে। কিন্তু যেটা খুবই উপেক্ষিত থেকে গেছে তা হল শিক্ষা।

প্রায় দেড় বছর থেকে এ দেশের দুটি মন্ত্রণালয়কে শুধু ‘না’ এবং ‘বন্ধ’ এগুলোই বলতে শোনা গেছে। একটি হচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় আর অন্যটি ধর্ম মন্ত্রণালয়। শিক্ষা বা ধর্মের ক্ষেত্রে কী কী করণীয় তা না বলে বরং বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা দিতেই ব্যস্ত থেকেছে এ দুটি মন্ত্রণালয়। এখন তো শিক্ষামন্ত্রীর রুটিন দায়িত্ব হল, ক’দিন পর পর সংবাদ সম্মেলনে এসে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের মেয়াদ বর্ধিত করার ঘোষণা দেওয়া।

আজ অবশ্য আমরা সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিয়ে কথা বলব না। এর জন্য তো দেশে শিক্ষাবিদ-বুদ্ধিজীবী এবং সাধারণ শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিত্বের অভাব নেই। তারাই বুঝবেন যে, নীরবে একটি জাতি কীভাবে মূর্খতার দিকে ক্রমে অগ্রসর হচ্ছে…। ইউরোপ-আমেরিকার অনেক দেশ আমাদের চেয়ে অনেক ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতির শিকার ছিল। তারাও একটা পর্যায়ে স্কুলগুলো খুলে দিয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে সেই যে মার্চ ২০২০-এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ

হয়েছে, এরপর আর খোলার নাম-গন্ধ নেই।

আমাদের দেশের মফস্বল এলাকাগুলোর দিকে যদি তাকাই; সেখানে কোভিড-পূর্ব পরিস্থিতি আর বর্তমান পরিস্থিতির মধ্যে কোনো পার্থক্য আছে কি? জীবনযাত্রায় তেমন কোনো পরিবর্তন আছে কি? উত্তর নিশ্চয়ই না-বাচক। রাজধানীর চিত্র যদিও ভিন্ন। এখানকার পরিস্থিতি মিশ্র। কিন্তু মফস্বলে, যেখানে জীবনযাত্রা প্রায় স্বাভাবিক, সেখানেও কচিকাঁচাদের পড়াশোনার জন্য স্কুল খুলে দেয়ার চিন্তা করা হয়নি। এ বিষয়ে আমরা বেশি কিছু বলতে চাই না। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গরা আছেন। তারাই ভাবুন।

আজ আমরা যা বলতে চাই তা হল, দেশের দ্বীনী শিক্ষাকেন্দ্রগুলো আর কোনো ক্রমেই বন্ধ রাখার সুযোগ নেই। দ্বীনী শিক্ষাকেন্দ্রগুলো একাধারে আল্লাহ তাআলার কালাম পড়ার কেন্দ্র এবং নীতি-নৈতিকতা ও স্বভাব-চরিত্র শুদ্ধিকরণের কেন্দ্র। মানুষের মধ্যে সত্যিকারের মানবিক গুণাবলি সৃষ্টির কেন্দ্র। সর্বোপরি এ প্রতিষ্ঠানগুলোতে রাত-দিন আল্লাহর  কালাম পড়ার কারণে এগুলো

দেশ ও জাতির উপর আল্লাহ তাআলার রহমত নাযিল হওয়ারও মাধ্যম বটে। কেউ কি বলতে পারেন, আল্লাহ তাআলা কীসের কল্যাণে, কীসের বিনিময়ে বারবার আমাদের রক্ষা করছেন? যেখানে দেড়শ-দু’শ বা কয়েক হাজার মুত্যু দেখলেই আমরা হাউমাউ করতে থাকি। মন্ত্রীরা বলেন, লাশের পাহাড় জমে যাবে। চিকিৎসা দেয়ার মতো আয়োজন নেই। আমাদের অগ্রিম কোনো ব্যবস্থা নেই… (অর্থাৎ যত বড় কথাই বলি, স্বাস্থ্যখাতে আমাদের সামর্থ্য সীমিত ও অপ্রতুল) সেখানে আল্লাহর রহমতের উপর ভরসা করা ছাড়া আমাদের আছেই-বা কী?

দ্বীনী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে যেহেতু রাত-দিন শুধু আল্লাহ তাআলা ও তাঁর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণী এবং সেগুলোর ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণের চর্চা হয়ে থাকে তাই নিঃসন্দেহে এগুলো আল্লাহ তাআলার মেহেরবানী ও রহমত লাভের কেন্দ্র।

মোটকথা, দ্বীনী শিক্ষাকেন্দ্রগুলো শুধু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নয়, শিক্ষার বাইরেও এর অতিরিক্ত মাত্রা রয়েছে। সুতরাং সাধারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিষয়ে সরকার যে সিদ্ধান্ত নেবে নিক, কিন্তু সামনে ঈদুল আযহার

তাছাড়া কওমী মাদরাসাগুলোর শিক্ষাকাঠামো ও অভ্যন্তরীণ কার্যক্রম এমনভাবে সাজানো যে, এখানে ছাত্রদের হাতে অফুরন্ত সময় থাকে না। এখানে শিক্ষাকালীন পূর্ণ সময় আবাসিক থেকে লেখাপড়া করতে হয়। বাইরে গিয়ে সংঘবদ্ধ হয়ে আন্দোলন-বিপ্লব করে বড় কিছু ঘটিয়ে ফেলার মতো অবস্থানে তারা থাকে না। এজন্য কারো কারো যেমনটা সন্দেহ বা কানাঘুষা শোনা যাচ্ছে যে, আন্দোলনের ভয়ে মাদরাসাগুলো খোলা হচ্ছে না- আপনারা নিশ্চিন্ত থাকুন, মাদরাসা খুলে দিলে নির্ধারিত কার্যক্রমই চালানো হবে। কারো ক্ষমতার পথে কওমী মাদরাসাগুলো প্রতিবন্ধক হবে, এমন ভাবার অবকাশ আছে বলে মনে হয় না।

সুতরাং আমরা আবারো সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বিশেষত দ্বীনী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো অবিলম্বে খুলে দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি এবং সাথে সাথে গ্রেফতারকৃত বা নিখোঁজ আলেম-উলামাদের জামিনে মুক্তি দেওয়ার অনুরোধ করছি। এদেশের নেতৃস্থানীয় বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, আমলা, গণমাধ্যমকর্মী ও অন্যান্য পর্যায়ের বড় বড় নেতাদের কত জনের নামেই তো কত কিছু শোনা যায়। ক্ষমতায় না থাকলে অনেকের নামে মামলা-মোকদ্দমাও হয়। এখন বিভিন্ন অভিযোগে যে আলেমদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের কারো যদি বাস্তবেই কোনো দোষ-ত্রুটি থাকে, তবে তা তদন্ত করে বিচারের  আওতায় আনা যেতে পারে। কিন্তু অনির্দিষ্টকালের জন্য এভাবে আলেম-উলামাদের বন্দি করে রাখা কোনোক্রমেই যুক্তিযুক্ত হতে পারে না।

সরকার যাই ভাবুক, চূড়ান্ত বিচারে যে এটি তার ইমেজ মারাত্মকভাবে ক্ষুণ্ন করবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তাই সকল বন্দি বা নিখোঁজ আলেমদের ছেড়ে দেওয়াই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।